শ্রেণিকক্ষে শিক্ষিকার ঘুমন্ত অবস্থার ছবি সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে জকিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন শিক্ষিকার স্বামী সুবিনয় চন্দ্র মল্লিক। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি জকিগঞ্জ থানায় এ অভিযোগটি দায়ের করেন।

থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ ছাড়া অন্য যাদের নাম রয়েছে তারা হলেন, উপজেলার গেছুয়া গ্রামের নূর উদ্দিন নুরাই মিয়ার ছেলে কেএম মামুন (৪০), ভরণ খাদিমবাড়ী গ্রামের রুমান উদ্দিনের ছেলে উপজেলা পরিষদ চেয়াম্যান কার্যালয়ের কর্মচারী মুন্না আহমদ (২৬)।

জকিগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান হাওলাদার জানান, শিক্ষিকা দীপ্তি রানীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় শিক্ষিকার স্বামী সুবিনয় চন্দ্র মল্লিক থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ১৮ অক্টোবর খলাছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মডেল টেস্টের দায়িত্ব পালনের সময় সহকারী শিক্ষিকা দীপ্তি রানী বিশ্বাস অসুস্থ হয়ে টেবিলে মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়েন। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে গিয়ে শিক্ষিকাকে ঘুমন্ত অবস্থায় দেখতে পেলে তার ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। কিন্তু ঐ শিক্ষিকা তখন অসুস্থ ছিলেন বলে তাঁর স্বামী দাবী করেন। পরে শিক্ষিকা দীপ্তি রানীও অসুস্থতার কথা তুলে ধরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ ছবি নিয়ে সারাদেশে তোলপাড় চলছে। এদিকে বৃহস্পতিবার জকিগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানবন্ধনের ডাক দিয়েছেন।

মন্তব্য

টি মন্তব্য করা হয়েছে