মিয়ানমারের রাখাইনে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধে মুসলিম বিশ্বকে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তান ও ইরান। দেশ দুটির সেনাপ্রধান রোববার এক টেলিফোন আলাপে এ আহ্বান জানান। পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাবেদ বাজওয়া ও ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান মোহাম্মদ হোসেইন বাকারির মধ্যে এই ফোনালাপ হয়।

দুই সেনাপ্রধান রোহিঙ্গা নিপীড়নের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তারা রোহিঙ্গাদের সহায়তায় দু’দেশের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেন।

তারা মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চলমান অমানবিক ও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি বন্ধে মুসলিম বিশ্বকে আরও কার্যকর ভূমিকা এবং ত্রাণ সহায়তার ক্ষেত্রে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

ইরানি সংবাদ সংস্থা তাসনিম নিউজ এজেন্সির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কামার জাবেদ ও মোহাম্মদ হোসেইন

উল্লেখ্য, রাখাইন রাজ্যে গত ২৫ আগস্ট অন্তত ৩০টি পুলিশ চৌকি ও একটি সেনা ক্যাম্পে রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি বা আরসা’র যোদ্ধারা প্রবেশের চেষ্টা করে। এরপর থেকে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী রাখাইনে ‘সন্ত্রাসবিরোধী’ অভিযানের নামে নির্বিচারে রোহিঙ্গাদের হত্যা, ধর্ষণ ও ঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছে।

ইতোমধ্যে চার হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে। আর নির্যাতনের মুখে ৪ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

জাতিসংঘ রোহিঙ্গাদের ওপর ‘জাতিগত গণহত্যা’ চালানো হচ্ছে উল্লেখ করে রাখাইনের সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে।

কিন্তু, মিয়ানমার সরকার এসব নাকচ করে রাখাইনের মুসলিম বিতাড়নের অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে।

সূত্র: প্রেস টিভির।

মন্তব্য

টি মন্তব্য করা হয়েছে